বিকৃত উপস্থাপন চিহ্নিতকরণ

প্রথম ধাপঃ সমস্যা সনাক্তকরণ।
প্রথম ধাপটি একটি ট্যাকনিক্যাল এবং জটিল ধাপ। এই ধাপে তথ্যের মূল উৎসকে সনাক্তকরণ করা সহজ হবে।

ক. ছবিতে কারসাজি শনাক্তকরণঃ
বিভিন্ন ম্যানিপুলেশন ডিটেক্টরের সাহায্যে বিকৃত ছবি শনাক্ত করবে গুজব ডট কম এর অভিজ্ঞ টিম এবং বিভিন্ন রিভার্স সার্চ এর মত টুলস ব্যবহার করে ছবি যাচাই এবং ছবিটির ভৌগলিক অবস্থান, প্রকাশের তারিখ ও ছবির প্রকাশ করার পটভূমি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য খুঁজে বের করবে।

খ. বানোয়াট/ফেক ভিডিও সনাক্তকরণঃ
ভিডিও গভীরভাবে ভিডিও পর্যবেক্ষণ, ফেইক ভিডিওর তথ্য উদ্ঘাটন করা এবং আসল ভিডিও খুঁজে বের করা । ভিডিওটি কোথায় ধারণ করা হয়েছে এবং ভিডিওর অরিজিনাল সোর্স ডিটেক্ট করা।

গ. সত্যের বিকৃত উপস্থাপন চিহ্নিতকরণঃ
বিভ্রান্তিকর শিরোনামের দিকে খেয়াল রাখা, ভুয়া বক্তব্য, বিকৃতি, কাল্পনিক তথ্য এবং সত্য এড়িয়ে যাওয়াসহ খুঁটিনাটি বিষয়ে নজর রাখা।

ঘ. তথ্য বিকৃতি ও সামাজিক গণমাধ্যমের অপব্যবহারঃ
বানোয়াট তথ্যকে সত্য বলে প্রচার, মেথোডোলজি বা গবেষণা পদ্ধতির বিকৃতি, সত্যের বিকৃত উপস্থাপন, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এড়িয়ে সংবাদের প্রসঙ্গ বদলে ফেলা অথবা তথ্য বিকৃতি ইত্যাদি চিহ্নিতকরন এবং সামাজিক বিভিন্ন গনমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিত্তিহীন সংবাদ ও তার উৎস সনাক্ত করা।

দ্বিতীয় ধাপঃ কর্মপরিকল্পনা স্থির করা।
এই ধাপে গুজব ডট কম দ্রুত একটি কর্মপরিকল্পনা তৈরি করবে এবং প্রয়োজনে ধাপে ধাপে অথবা সম্ভাব্য একাধিক সমাধান ঠিক করে নেবে।
ক. সমস্যাটির ভৌগলিক অবস্থান/টার্গেট চিহ্নিত করা।

তৃতীয় ধাপঃ একশনঃ
মুহূর্তের মধ্যে চিহ্নিত করা ভৌগলিক অঞ্চলের মানুষের মোবাইল/মুঠোফোনে ব্রডকাস্টিং এর মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া গুজবকে ধ্বংস করা।

নিরাপত্তার স্বার্থে প্রোজেক্টের গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো গোপন রাখা হয়েছে।

Related Blogs

4 Comments

Leave us a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.