ঈদে গরিব-দুখীর পাশে দাঁড়াই।

বাংলাদেশে ঈদ উল-আজহা শনিবার, অথচ বন্যাদুর্গতরা এখনো ঘরে ফিরতে পারেনি। বন্যা পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি হচ্ছে। ২১ জেলায় ৩০ লাখের বেশি মানুষ এখন পানিবন্দী (সুত্রঃ প্রথম আলো)। অনেকের ঘড়বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়াও করোনাভাইরাসের কারনে অর্থনীতিতে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা। নিম্ন আয়ের মানুষেরা এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি সমস্যাপীড়িত। 

অনেকের ঘরে নেই দু মুঠো অন্নের সংস্থান। এই ঈদে আমাদের সকলের উচিত বিপন্ন ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

তাই সবাই মিলে আসুন আমরা বন্যাকবলিত ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াই তাদের সাথে ঈদের আনন্দটা ভাগাভাগি করে নেই এটা আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব৷ সবকিছুকে জয় করে আমরা যদি এবারের ঈদে ক্ষুধার্ত অসহায় মানুষের মুখে একটু হাসি ফুটাতে পারি, তাহলে ঈদের আনন্দ ও উদ্দেশ্য সার্থক হবে।

ত্যাগের জন্য এর চেয়ে সুন্দর কোরবানির ঈদের সুযোগ আর হয়তো আমরা নাও পেতে পারি। ঈদ একাধারে উৎসব ও ইবাদত। এবার ঈদ হোক সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে নেওয়ার, পাশের মানুষের প্রতি সদয় ও ঔদার্য্যের হাত প্রসারিত করার উত্তম সুযোগ সৃষ্টিকর্তা আমাদের দিয়েছেন। বুকে সুতীব্র আশা-এই প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলোকে পরাস্ত করে আমরা জয়ী হবোই।

ঈদ মোবারক

কয়েকটি বিষয় জেনে রাখা ভালোঃ-

  • মাস্ক ব্যবহার করুন।
  • ঈদের নামাজ আদায় করার সময়, কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে দূরত্ব বজায় রাখুন।
  • কোলাকুলি ও হাত মেলানো পরিহার করুন।
  • কোরবানি পশুর বর্জ্য উন্মুক্ত ডাস্টবিন ও নর্দমায় ময়লা ফেলবেন না, বর্জ্য ববস্থাপনায় সতর্কতা অবলম্বন করুন।
  • আপনার চারপাশ যেন দুর্গন্ধ ও জীবাণুমুক্ত থাকে, সেদিকে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিন।
  • আপনার এলাকায় কোন গুজব যেনো ছড়িয়ে না পড়ে, সেবিষয়ে সচেতন থাকুন।

Leave us a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.